টক অব দ্যা কান্টি

২৯ দিন নিখোঁজ থাকার পর আত্মগোপনে থাকা মরিয়ম মান্নানের মাকে পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়েছে। রোববার (২৫ সেপ্টম্বর) সকালে রহিমা বেগমকে পিবিআই কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে খুলনায় প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন পিবিআই পুলিশ সুপার সৈয়দ মোশফিকুর রহমান। তিনি বলেন বলেন, থানা পুলিশের কাছ থেকে রহিমা বেগমকে নেওয়ার পর থেকেই তিনি মুখ বন্ধ করে আছেন। বারবার বলছেন আমি কারও কাছে যেতে চাই না, কারও সঙ্গে কথা বলতে চাই না। আজ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতে পাঠানো হবে

রোববার (২৫ সেপ্টম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের বলেন, এখন বাংলাদেশের ‌’টপ অব দ্যা কান্ট্রি’ রহিমা বেগমের অপরহরণ মামলা। যে মামলাটি আমরা তদন্ত করছি। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ গতকাল (শনিবার) রাতে ফরিদপুরের বোয়ালমারী থানাধীন সৈয়দপুর গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর তাকে খুলনায় আনা হয়। আমরা রহিমা বেগমকে আজ সকাল ১১টার দিকে রিসিভ করি। আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। কিন্তু তিনি উদ্ধারের পর থেকে এখন পর্যন্ত কোনও কথা বলছেন না। তাকে একটু নার্ভাস মনে হচ্ছে। তবে রহিমা বেগম সুস্থ আছেন। আমরা আশা করছি, যে কোন একটা পর্যায়ে তার থেকে সম্পূর্ণ ঘটনা এবং রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হবো।।

এর আগে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত পৌনে ১১টার দিকে ফরিদপুরের বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুসের বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। রহিমা বেগমকে নিয়ে পুলিশের একটি টিম শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে দৌলতপুর থানায় পৌঁছায়।

সেখানে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, অফিসাররা ওই বাড়িতে গিয়ে দেখেন, ভিকটিম দুই নারীর সঙ্গে কথা বলছেন। অফিসাররা যখন তাকে জিজ্ঞেস করেন, তখন থেকে তিনি কথা বলা বন্ধ করে দেন।

এর আগে শুক্রবার সকালে নিখোঁজ রহিমা বেগমের (৫৫) সন্ধানে ময়মনসিংহে যায় মরিয়ম ও তার পরিবারের সদস্যরা। কাপড় দেখে লাশটি মায়ের দাবি করেন মরিয়ম। তবে পুলিশ বলেছিল, ডিএনএ টেস্ট ছাড়া লাশ চূড়ান্ত শনাক্ত করা সম্ভব নয়।

রহিমার মেয়ে মরিয়ম মান্নান পুলিশকে বিভ্রান্ত করেছেন অভিযোগ করে পিবিআই পুলিশ সুপার সৈয়দ মোশফিকুর বলেন, মরিয়ম মান্নান বিভিন্ন সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছেন। তিনি কেন এটা করেছেন তা এখনো জানা সম্ভব হয়নি। তবে যাই হোক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিশ্বাস করতে হবে। আমরা চেষ্টা করছি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করতে।

ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে নিয়ে আসা তিনজনের বিষয়ে সৈয়দ মোশফিকুর রহমান বলেন, আমরা তাদেররও জিজ্ঞাসাবাদ করবো। ক্যাম্পের কাছ থেকে তাদের আমরা এখনো বুঝে নেইনি। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এতোদিন কোথায় ছিলেন এমন প্রশ্নের জবাবে পিবিআই এসপি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি নিখোঁজ হওয়ার পরে তিনি প্রথমে কয়েকদিন বান্দরবন ছিলেন। তারপর চট্টগ্রামে ছিলেন। এরপর মোকসেদপুর হয়ে তিনি ফরিদপুর আব্দুল কুদ্দুসের বাড়িতে যান। ওই বাড়িতে কিভাবে গেলেন এমন প্রশ্ন আসতে পারে। রহিমা বেগম মহেশ্বরপাশার যে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়েছিলেন, ওখানে ২৮ বছর আগে আব্দুল কুদ্দুস ভাড়া থাকতেন। তিনি সোনালী জুট মিলে চাকরি করতেন, সেই সুবাধে তার সাথে রহিমা বেগমের পরিচয় ছিল। সেই সুবাধে তিনি কুদ্দুসের বাড়ি খুঁজে বের করেন এবং ১৭ সেপ্টম্বর থেকে উদ্ধার করার আগ পর্যন্ত তিনি সেখানে অবস্থান করেন।

পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান বলেন, আমরা এখনও তদন্ত করছি। প্রাথমিকভাবে উনার (রহিমা) কাছ থেকে পরিধেয় জামা-কাপড় ও ওষুধ ছিল। তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবে একজন অপহৃত হলে তার কাছে এগুলো থাকার কথা নয়। তারপরও আমরা মামলার তদন্ত করছি। তদন্ত শেষে আপনাদের বিস্তারিত তথ্য দিতে পারবো। তবে আপাতত দৃষ্টিতে এটি অপহরণ নাও হতে পারে।

২৭ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে পানি আনতে বাড়ি থেকে নিচে নামেন রহিমা বেগম (৫২)। এরপর আর বাসায় ফেরেননি। রাতে সম্ভাব্য সব স্থানে খোঁজ নিয়েও তার সন্ধান মেলেনি। এরপর সাধারণ ডায়েরি ও পরে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে দৌলতপুর থানায় মামলা করেন তার সন্তানরা। এ মামলা তদন্তকালে পুলিশ ও র‌্যাব ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছয়জনকে গ্রেফতার করে।

তারা হলেন- খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) প্রধান প্রকৌশল কার্যালয়ের সহকারী প্রকৌশলী মো. গোলাম কিবরিয়া, নিখোঁজ গৃহবধূর দ্বিতীয় স্বামী হেলাল হাওলাদার, দৌলতপুর মহেশ্বরপশা বণিকপাড়া এলাকার মহিউদ্দিন, পলাশ, জুয়েল এবং হেলাল শরীফ।