পেরুর প্রত্নতাত্ত্বিকরা প্রায় ৮শ থেকে ১২শ বছর আগের মমির সন্ধান পেয়েছেন। এই মমিগুলোর মধ্যে আটটি শিশুর এবং ১২টি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির। রাজধানী লিমার পূর্বাঞ্চলীয় এলাকা কাজামারকুইলা থেকে এগুলো উদ্ধার করা হয়। খবর রয়টার্সের।

এই মমিগুলো একটি ভূগর্ভস্থ সমাধির বাইরে ছিল। যেখানে পেরুর সান মার্কোস বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দল গত বছরের নভেম্বরে একটি প্রাচীন মমি খুঁজে পায়।

প্রত্নতাত্ত্বিক পিটার ভ্যান ডালেন বলেন, দেহগুলোর কিছু মমি করা ও অন্যগুলো কঙ্কাল অবস্থায় পাওয়া গেছে। যা প্রাচীন প্রাক-হিস্পানিক রীতির অংশ হিসেবে কাপড়ের বিভিন্ন স্তরে মোড়ানো ছিল।

ভ্যান ডালেন বলেন, এই মরদেহগুলো সমাধির ধরনটি বেশ পরিচিত। শিশু ও বয়স্কদের পাশাপাশি এক হাজার ৭০০ বছর আগের সিপানের শাসকের মরদেহও পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি।

প্রত্নতাত্ত্বিক দলের সদস্য ইয়োমিরা হুয়ামান বলেন, অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার সরঞ্জামের সঙ্গে বাঁশির আকারে বেশ কয়েকটি কাঠের টিউবসহ আন্দিয়ান প্রজাতির একটি বাদ্যযন্ত্রের সন্ধান পাওয়া গেছে সেখানে।

তিনি বলেন, আমাদের তদন্তে দেখা গেছে, কাজামারকুইলার মমিটি প্রায় ৩৫ বছরের একজন পুরুষের হবে। তাদের দেহের ভেতরের পচনশীল কোনো অঙ্গপ্রত্যঙ্গ খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার মানে মৃত্যুর পরই এগুলো বের করে ফেলা হয়।

পেরু হলো ইনকা সাম্রাজ্যের আগে ও পরে গড়ে ওঠা সংস্কৃতির শত শত প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের কেন্দ্রবিন্দু। এই সাম্রাজ্য ৫০০ বছর আগে দক্ষিণ ইকুয়েডর এবং কলম্বিয়া থেকে মধ্য চিলি পর্যন্ত আধিপত্য বিস্তার করেছিল।