যে কোনো দেশে বসবাস করতে হলে বাসিন্দাদের সরকারকে তার উপার্জনের ভিত্তিতে ট্যাক্স দিতে হয়। তবে যাদের অবস্থা খারাপ সেসব বাসিন্দার সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় ভাতা দেওয়া হয় বটে, তবে তার পরিমাণ খুবই সামান্য। 

তবে এমনও স্থান রয়েছে, যেখানে গিয়ে বসতি গড়তে সরকার বিপুল পরিমাণ টাকা দেবে। এমনই তিনটি স্থান হচ্ছে— সুইজারল্যান্ডের অ্যালবিনে, ইতালির প্রেসি-অ্যাকোয়ারটিকা এবং গ্রিসের অ্যান্টিকায়থেরা হদিস।

জানা গেছে, সুইজারল্যান্ডের ছোট্ট গ্রাম অ্যালবিন। সবুজ উপত্যকায় ঘেরা এ গ্রামটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। তবে ওই গ্রামের জনসংখ্যা মাত্র ২৫০ জন। তাই গ্রামের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে যারা সেখানে বসতি স্থাপন করে বসবাস করবে, সরকারের পক্ষ থেকে তাদের ৬০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় সাড়ে ৬২ লাখ টাকা) দেওয়া হবে।

ইতালির দুই শহর প্রেসি ও অ্যাকোয়ারটিকা এক হয়ে এখন স্যালেন্টো নামে পরিচিত। এখানেও সেই একই সমস্যা। এই শহরে গিয়ে যদি কেউ বসতি গড়ে, তবে সরকার সেখানে ব্যবসা শুরু করার জন্য বাসিন্দাকে ৩০ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩১ লাখ টাকা) দেবে। গত বছর এই অঞ্চলে ৬০ জনের জন্ম হয়েছিল, অন্যদিকে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১৫০ জনের।

এ ছাড়া গ্রিসের অ্যান্টিকায়থেরা শহরটিও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর, চোখ সরানো দায়। এর প্রাকৃতিক পরিবেশ মনোমুগ্ধকর। এ জায়গায় মোট ৫০ জনের বসতি। সেখানেও অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য সরকার বিশেষ ভাতার ব্যবস্থা করেছে। বলা হয়েছে, তিন বছরের জন্য কেউ যদি সেখানে গিয়ে বসতি গড়ে তাকে প্রতি বছর ৬০০ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৬২ হাজার টাকা দেওয়া হবে।