বিয়েতে আগ্রহ কমছে জাপানের তরুণ-তরুণীদের মধ্যে। এর প্রভাবে দেশটি জনসংখ্যা হ্রাস জনিত সমস্যায় পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। 

সরকারি সংস্থা দ্য ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পপুলেশন অ্যান্ড সোশ্যাল সিকিউরিটি জানিয়েছে, ২০২১ সালে পরিচালিত জরিপটি চলতি মাসে প্রকাশিত হয়েছে। এই জরিপে জন্মহার কমে যাওয়ার যে চিত্র পাওয়া গেছে তা উদ্বেগজনক।

জরিপ অনুযায়ী, ১৮ থেকে ৩৪ বছর বয়সী ১৭ দশমিক ৩ শতাংশ তরুণ এবং ১৪ দশমিক ৬ শতাংশ তরুণী জানিয়েছেন, জীবনে তাদের বিয়ের ইচ্ছা নেই। ১৯৮২ সালের পর বিয়ের প্রতি অনাগ্রহের এই হার সর্বোচ্চ।

বিয়ে কমে যাওয়া জাপানের জন্মহারের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। জনসংখ্যা হ্রাসের কারণে দেশটির জনসংখ্যা এবং কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী হ্রাস পাবে।

বিশেষজ্ঞরা এই প্রবণতার জন্য বেশ কয়েকটি কারণকে দায়ী করেছেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে অল্পবয়সী কর্মজীবী নারীদের মধ্যে অবিবাহিত থেকে ক্যারিয়ারে পাওয়া স্বাধীনতাগুলো উপভোগ করার ক্রমবর্ধমান আকাঙ্ক্ষা।

জাপানি পুরুষরা জানিয়েছেন, অবিবাহিত থাকাকে তারা উপভোগ করে। তবে চাকরির নিরাপত্তা এবং পরিবারের জন্য তাদের আর্থিক তাদের সামর্থ্য নিয়ে উগ্বিগ্ন। 

বিশেষজ্ঞরা জনসংখ্যা হ্রাসজনিত এই সমস্যা এড়াতে নারীদের সন্তান ধারণের পর কাজে ফিরে আসা সহজ করা এবং জাপানের ভয়াবহ দীর্ঘ কর্মঘণ্টা কমিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছেন।