বিমান ভ্রমণের সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ। এ কারণে সকল স্মার্টফোনেই ফ্লাইট মোড থাকে। কিন্তু অনেকেরই জানা নেই কেন বিমানে ফোন ব্যবহার করতে দেয়া হয় না। 

বিমানে ওঠার পর মোবাইল ফোন ফ্লাইট মোড চালু রাখতে বলা হয়। এর অন্যতম কারণ হলো সিগন্যালের সমস্যা এড়ানো। ফোনের সিগন্যাল চালু রাখলে পাইলটের রেডিও সিগন্যাল আদান-প্রদানে বিঘ্ন ঘটতে পারে। কেননা, বিমানের পাইলট যোগাযোগের জন্য রেডিও সিগন্যালের ওপর নির্ভরশীল। 

মোবাইল ফোনের সিগন্যাল চালু রাখলে এয়ার ট্রাফিক এবং আকাশে উড়তে থাকা অন্যান্য পাইলটদের সঙ্গে যোগাযোগে ব্যাঘাত ঘটে। হয়তো মোবাইল ফোনের জিএসএম সিগন্যাল জটে পড়তে পারে রেডিও সিগন্যাল।  

মূলত সিগন্যালের সমস্যা এড়ানোর জন্যই বিমান ভ্রমণের সময় পাইলট এবং বিমানবালারা যাত্রীদের মোবাইল ফোন ফ্লাইট মোডে রাখার নির্দেশনা দেন। যদিও  এখন কিছু বিমানে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহৃত হচ্ছে। যে প্রযুক্তি ব্যবহারে বিমানেও মোবাইল ফোন ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। 

বিমানে ফ্লাইট মোড চালু থাকলে ফোনে কথপোকথন এবং ইন্টারনেট চালু রাখা যায় না। অর্থাৎ সক্রিয় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয় এই অবস্থায় ।