প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত ক্রীড়ামোদী। ক্রীড়াঙ্গনের সকল সাফল্যে তিনি উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দেন। বিশেষ করে নারী ফুটবলারদের পাশে সব সময় আছেন প্রধানমন্ত্রী। 

সাবিনা খাতুনরা সাফ চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। সাবিনাদের জন্য প্রধানমন্ত্রী এখনো পুরস্কার ঘোষণা করেননি। প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাফুফে সাবিনাদের জন্য কি চাইবে এই প্রসঙ্গে নারী উইংয়ের চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সব সময় নারী ফুটবলারদের অনুপ্রাণিত করেন। আমরা নারী ফুটবলারদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমি-ফ্ল্যাট চাইব।’  

এর আগে বয়সভিত্তিক সাফ ও এএফসি বাছাইয়ে বাংলাদেশ দল ভালো পারফরম্যান্স করার পর প্রধানমন্ত্রী ফুটবলারদের আর্থিক পুরস্কার দিয়েছিলেন। 

চ্যাম্পিয়ন নারী দলের অনেক ফুটবলারের ঘর-বাড়ি রুগ্ন অবস্থায়। অনেকের বাবা-মা নিম্ন আয়ের। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ দলের ডিফেন্ডার আঁখি খাতুনকে জমি দিয়েছেন। সেই জমি নানা জটিলতা শেষে কিছু দিন আগে বুঝে পেয়েছিলেন। সেই জমি সংক্রান্ত বিষয়ে আঁখির পরিবার হুমকি পেয়েছেন। এই বিষয়ে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেন, ‘বিষয়টি এখনো আমরা সেভাবে জ্ঞাত নই। আঁখির সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলব। প্রয়োজনীয় সাহায্য ও পদক্ষেপ নেব।’

যারা বাংলাদেশকে বড় উপলক্ষ নিয়ে এসেছেন তাদের জন্য উৎসবমুখর ছিল পুরো রাজধানী। সেখানে ব্যতিক্রম ছিল বাফুফে ভবন। নিচে একটি বোর্ড ও উপরে একটা ব্যানার ছাড়া বোঝার উপায় ছিল না সাবিনারা দক্ষিণ এশিয়ার সেরা। ব্র্যান্ডিংয়ের অভাবটি বুঝতে পেরে বাফুফে উদ্যোগ নিচ্ছে, ‘আমরা আজই ব্র্যান্ডিংয়ের কাজ শুরু করেছি। আগামীকালের মধ্যে পরিবর্তন দেখতে পাবেন’ –বলেন সাধারণ সম্পাদক। 

গতকাল বুধবার রাতে বাফুফে ভবনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে শুরুতে কোচ ও অধিনায়ক সামনে থাকলেও এক পর্যায়ে পেছনে ছিলেন। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে তুমুল সমালোচনা। এই প্রসঙ্গে বাফুফের ভাষ্য, ‘গতকাল যা কিছু হয়েছে আপনাদের সামনেই। আমরা সাফল্যের এই মুহূর্তে ইতিবাচকভাবেই এগিয়ে যেতে চাই।’