পর্যটকদের ভিড় সামলাতে না পারায় সেন্ট মার্টিনে যেতে এবং রাতযাপনে নাইট স্টে ফি আরোপের পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে ভ্রমণে যেতে যাত্রীপ্রতি এক হাজার টাকা ফি আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে রাতযাপনের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত দুই হাজার টাকা দিতে হবে পর্যটকদের।

সেন্ট মার্টিনের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় গঠিত ফাংশনাল কমিটির বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ১৩ ফেব্রুয়ারি এসব সিদ্ধান্ত নেয় কমিটি। এদিকে সেন্টমার্টিনের সুরক্ষা ও পর্যটক নিয়ন্ত্রণের উচ্চপর্যায়ের আরো একটি বৈঠক আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের সভাপতিত্বে সেন্ট মার্টিন দ্বীপের পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সুরক্ষা এবং টেকসই পর্যটন উন্নয়নে প্রণীত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নসংক্রান্ত একটি সভায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও সংস্থার প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে এ কমিটি গঠন করা হয়।

সংশ্লিষ্ট নথি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সেন্টমার্টিন দ্বীপ রক্ষায় অবকাঠামো নির্মাণে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থান নেয়ার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এছাড়া জমি ব্যবহার নীতিমালা, জেটি ব্যবস্থাপনা, পর্যটন পরিবহন ছাড়াও দ্বীপের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় ১২টি বৃহৎ পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে পর্যটন পরিবহনের ক্ষেত্রে। সেন্টমার্টিন দ্বীপের ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত পর্যটক নিরুৎসাহিত করতেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা) মুহাম্মদ সোলায়মান হায়দার গণমাধ্যমকে বলেন, সেন্টমার্টিন দ্বীপ রক্ষা ও পর্যটন সীমিত করার বিষয়ে একগুচ্ছ পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। স্থাপনা নির্মাণসহ বিভিন্ন বিষয়ে কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে নীতিগতভাবে ঐকমত্যে পৌঁছেছে সরকারি বিভিন্ন সংস্থা। আরো বেশ কয়েকটি বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করলেই দ্বীপটি রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার কার্যক্রম হাতে নেয়া হবে।

‌পিএসএন/এমঅ‌াই