গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান অ্যালফাবেট ১২ হাজার কর্মী ছাঁটাই করার পরিকল্পনা নিয়েছে। যা প্রতিষ্ঠানটির মোট কর্মী সংখ্যার ৬ শতাংশ।

গত বছর নভেম্বর মাসে অ্যালফাবেট জানিয়েছিল, নতুন বছরের শুরুতেই মূলত ‘খারাপ পারফরম্যান্সে’র ইস্যুতে ১০ হাজার কর্মীকে ছাঁটাইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছে অ্যালফাবেট। সেক্ষেত্রে সার্বিকভাবে কোম্পানির উন্নতির জন্যেই কর্মী ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনা করা হয়েছে বলেও সেসময় কোম্পানির পক্ষে জানানো হয়েছিল। সেই অনুযায়ী ২০২৩ সালের প্রথমেই পাকাপাকিভাবে ছাঁটাইয়ের ঘোষণা করেছে অ্যালফাবেট।

সারা বিশ্বে জুড়ে থাকা অ্যালফাবেটের কর্মীদের চাকরিতেই প্রভাব পড়তে চলেছে। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কর্মীদের দ্রুত এই প্রভাব পড়বে বলেই অ্যালফাবেট সূত্রে জানা গিয়েছে। এ প্রসঙ্গে কর্মীদের ই-মেলের মাধ্যমে শুক্রবার জানিয়ে দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কোম্পানির সিইও সুন্দর পিচাই।


ছাঁটাই প্রসঙ্গে কর্মীদের পিচাই জানিয়েছেন যে এই ‘সিদ্ধান্তের সম্পূর্ণ দায়িত্ব নেওয়ার জন্য আমরা দায়বদ্ধ।’

তার ভাষ্য, ‘টেক জায়ান্ট কর্মীদের পরবর্তী সুযোগের জন্য সব রকমভাবে সাহায্য করবে।’ সেক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যে সকল কর্মীদের ছাঁটাই করা হবে তাদের নূন্যতম ৬০ দিনের নোটিসের সময়সীমা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

google২০২১ সালে সালে গুগল প্রায় ১.৫৬ লাখ কর্মী নিয়োগ করেছে। তবে ছাঁটাইয়ের বিষয়ে এর আগে গুগল ঘোষণা করেছিল একটি ‘নতুন পারফরম্যান্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমে’ পরিবর্তনের অংশ হিসাবে গুগল কর্মীদের বছরের শেষে বোনাসও পিছিয়ে দিয়েছে। তবে কোম্পানি প্রাথমিকভাবে যোগ্য কর্মচারীদের ৮০% অগ্রিম বোনাস দেবে এবং বাকিটা পরবর্তী মাসে দেবে বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, গুগলের অ্যালফাবেটই একমাত্র টেক জায়ান্ট নয় যারা ছাঁটাইয়ের পন্থা অবলম্বন করেছে। সেক্ষেত্রে মাইক্রোসফট সম্প্রতি ১০ হাজার কর্মী ছাঁটাই করেছে এবং অ্যামাজনও বেশ কয়েকটি ধাপে কর্মী ছাঁটাই জারি রেখেছে। গত বছর নভেম্বর থেকে কর্মী ছাঁটাইয়ের ট্রেন্ডে রয়েছে মেটা, ফেসবুক, টুইটারসহ আরও অনেক বহুজাতিক কোম্পানি।

বিশ্বজুড়ে চলতে থাকা আর্থিক মন্দার প্রভাবে আগামী দিনেও বিভিন্ন বিভাগের কোম্পানির কর্মীদের চাকরি হারানোর সম্ভাবনা রয়েছে।