জাতীয়

আন্তর্জাতিক

  • কাতারে ইসলামের সাথে পরিচিত হচ্ছে অমুসলিমরা, আসছে চিন্তার পরিবর্তন
    কাতারে ইসলামের সাথে পরিচিত হচ্ছে অমুসলিমরা, আসছে চিন্তার পরিবর্তন

    চলতি বছরের ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম ছোট দেশগুলোর একটি কাতারে। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই ক্রীড়া ইভেন্ট উপভোগে সারা বিশ্বের লাখ লাখ ফুটবল ভক্তের উপস্থিতি এখন এই দেশটিতে।

    জাঁকজমক ফুটবল আয়োজনে মানুষকে মাতিয়ে রাখার পাশাপাশি ইসলামও প্রচার করছে কাতার। মূলত বিশ্বকাপ আয়োজনের সুবিধা কাজে লাগিয়ে ইসলাম সম্পর্কে মন পরিবর্তন করতে বা এমনকি ধর্মান্তরিত করার জন্য হাজার হাজার অমুসলিম দর্শনার্থীর কাছে শান্তির এই ধর্ম প্রচার করছে দেশটি।

    রোববার (৪ ডিসেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসলাম সম্পর্কে মন পরিবর্তন করতে বা এমনকি ধর্মান্তরিত করার জন্য কয়েক হাজার দর্শনার্থীর কাছে পৌঁছানোর জন্য বিশ্বকাপকে কাজে লাগিয়েছে গর্বিত মুসলিম দেশ কাতার।

    মূলত মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় এই দেশটি হলো প্রথম কোনও মুসলিম দেশ যারা ফুটবল বিশ্বকাপের মতো বিশাল ইভেন্ট আয়োজন করেছে। আর এই আয়োজন উপভোগে সারা বিশ্বের লাখ লাখ ফুটবল ভক্ত মধ্যপাচ্যের এই ধনী দেশটিতে পৌঁছেছেন এবং তাদের মধ্যে অমুসলিম দর্শকদের কাছেই ইসলামকে পরিচিত করিয়ে দিচ্ছে কাতার।

    এএফপি বলছে, কানাডিয়ান দম্পতি ডোরিনেল এবং ক্লারা পোপা কাতারের রাজধানী দোহার কাতারা সাংস্কৃতিক জেলায় অবস্থিত অটোমান-শৈলীর একটি মসজিদে নামাজের আযান শোনেন। দেয়ালে নীল ও বেগুনি রঙের টাইলসের চমৎকার মোজাইক থাকার কারণে এই মসজিদটি দোহার ব্লু মসজিদ নামে পরিচিত।

    মসজিদের সামনে যাওয়ার পর একজন গাইড কানাডীয় এই দম্পতিকে স্থাপনা ঘুরে দেখাতে ভেতরে নিয়ে যান। ৫৪ বছর বয়সী পেশায় অ্যাকাউনটেন্ট ডোরিনেল পোপা বলছেন, কাতারে এসে তারা প্রথমবার ইসলাম সম্পর্কে জানলেন।

    তিনি বলছেন, বিশ্বের বিভিন্ন সংস্কৃতি ও মানুষ সম্পর্কে আমাদের নানা কুসংস্কার আছে। আর সেগুলো মূলত অন্যদের কাছে (কোনও বিষয়বস্তু সম্পর্কে) প্রকাশের অভাবের কারণেই।’

    ডোরিনেল পোপার স্ত্রী ক্লারা পোপা পেশায় একজন চিকিৎসক। ৫২ বছর বয়সী ক্লারা বলছেন, ‘(ইসলাম সম্পর্কে) আমাদের মাথায় কিছু ধারণা ছিল এবং এখন হয়তো সেগুলো পরিবর্তন হবে।’

    এএফপি বলছে, দোহার ব্লু মসজিদটি তত্ত্বাবধান করে কাতার গেস্ট সেন্টার। বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে সারা বিশ্ব থেকে কয়েক ডজন মুসলিম ধর্ম প্রচারককে কাতারে নিয়ে এসেছে তারা। মসজিদের বাইরে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হযরত মোহাম্মদকে (সা.) নিয়ে বিভিন্ন ভাষায় ছাপানো বহু পুস্তিকা রয়েছে। এর সঙ্গে রয়েছে অ্যারাবিক কফি ও খেজুর।

    সিরিয়ার স্বেচ্ছাসেবক জিয়াদ ফাতেহ বলছেন, বিশ্বকাপ হলো লাখ লাখ মানুষকে ইসলামের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার এবং এই ধর্ম সম্পর্কে ভুল ধারণা পাল্টে দেওয়ার একটি সুযোগ। কারণ পশ্চিমাদের অনেকেই এই ধর্মকে ভুল বুঝে থাকেন।

    তিনি আরও বলেন, ‘আমরা মানুষকে নৈতিকতা, পারিবারিক বন্ধনের গুরুত্ব এবং প্রতিবেশী ও অমুসলিমদের প্রতি শ্রদ্ধা সম্পর্কে (ইসলামের শিক্ষা) ব্যাখ্যা করি।’

    মসজিদের কাছে স্বেচ্ছাসেবকরা একটি টেবিল রেখেছেন। যেখানে লেখা রয়েছে: ‘আমাকে কাতার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন’। সেখানে যেসব দর্শনার্থী থামছেন, তাদের অ্যারাবিক কফিও পরিবেশন করা হচ্ছে।

    সোমায়া নামে একজন ফিলিস্তিনি স্বেচ্ছাসেবক বলছেন, অমুসলিম দর্মনার্থীরা সবচেয়ে বেশি যেসব বিষয়ে জানতে চাচ্ছেন, তা হলো- পর্দা, বহুবিবাহ এবং ইসলামে নারীরা নির্যাতিত কি না।

    কাতারের এই মসজিদের কাছাকাছি স্থানে দর্শকরা ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে পাঁচ মিনিটের ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটি ট্যুর উপভোগ করতে পারছেন। এর পাশাপাশি ইসলাম ধর্ম ও এর সৌন্দর্য সম্পর্কে কাতারজুড়ে নানা প্রচারণাও চালানো হচ্ছে।

    কাতারের পার্ল জেলায় ভালো চারিত্রিক ও নৈতিকতার আহ্বান জানিয়ে মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.)-এর নানা হাদিসের ম্যুরাল আঁকা হয়েছে। এছাড়া উচ্চমানের শপিং মলগুলোতে ইসলাম ধর্মের প্রচারণামূলক নানা বিজ্ঞাপনও রয়েছে।

    এএফপি বলছে, কাতারের সৌক ওয়াকিফ বাজারে প্রতিদিন হাজার হাজার ফুটবল ভক্ত জড়ো হয়ে থাকেন। সেখানেই একটি অংশে বিনামূল্যে বহু বই এবং পুস্তিকা রেখে দেওয়া হয়েছে। সেখানে লেখা আছে: ‘যদি আপনি সুখের সন্ধান করেন… তবে আপনি (এটি) ইসলামেই পাবেন’।

    সৌকের কাছে অবস্থিত শেখ আবদুল্লাহ বিন জায়েদ ইসলামিক কালচারাল সেন্টারে ভ্রমণের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। দর্শনার্থীদের ট্যুরের জন্য প্রতিদিন ১২ ঘণ্টা খোলা থাকে এই ইসলামিক কালচারাল সেন্টারটি।

    এছাড়া কাতারের কিছু মুসলিম নেতা অমুসলিম ফুটবল ভক্তদের ইসলামে ধর্মান্তরিত করার প্রচেষ্টা চালাতে আহ্বানও জানিয়েছেন।

    কাতার ইউনিভার্সিটির শরিয়া আইনের অধ্যাপক সুলতান বিন ইব্রাহিম আল হাশেমি ভয়েস অব ইসলাম নামে একটি রেডিও স্টেশনের প্রধান হিসেবেও দায়িত্বপালন করছেন। তিনি বলছেন, ফুটবল বিশ্বকাপকে নতুন ধর্মান্তরিতদের খুঁজে বের করার পাশাপাশি ইসলামোফোবিয়া মোকাবিলায় ব্যবহার করা উচিত।

    অধ্যাপক হাশেমি এএফপিকে বলেছেন, বিদেশি ফুটবল ভক্তদের সাথে দেখা হলে, আমি তাদের ইসলাম ধর্ম গ্রহণের প্রস্তাব দেব।

    অধ্যাপক সুলতান বিন ইব্রাহিম আল হাশেমির ভাষায়, ‘যদি আমি সুযোগ পাই, আমি তাদের স্বাচ্ছন্দ্য ও অনুগ্রহের সাথে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের প্রস্তাব দেব এবং যদি আমি সুযোগ না পাই তবে আমি তাদের বলব, আপনি আমাদের অতিথি এবং মানবতার ভাই।’

    তবে তিনি জোর দিয়ে বলেন, ইসলাম জোরপূর্বক ধর্মান্তরিত হওয়াকে মেনে নেয় না।

    সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া বহু পোস্টে দাবি করা হয়েছে, বিশ্বকাপ উপলক্ষে কাতারে গিয়ে শত শত ফুটবল ভক্ত ধর্মান্তরিত হয়েছেন। কিন্তু এএফপি-এর ফ্যাক্ট-চেকিং পরিষেবা দেখাচ্ছে- ধর্ম পরিবর্তনের এসব দাবি সঠিক নয়।

    কাতারের রিলিজিয়াস এনডোমেন্টস মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা এএফপিকে বলেছেন, ‘ইসলামে ধর্মান্তরিতদের সংখ্যা নয়, বরং যারা এই ধর্ম সম্পর্কে যারা নিজেদের মতামত পরিবর্তন করছেন তাদের সংখ্যাই’ কাতারের লক্ষ্য।

খেলাধুলা

  • কোরিয়াকে উড়িয়ে দিতে মাঠে নামবেন নেইমার!
    কোরিয়াকে উড়িয়ে দিতে মাঠে নামবেন নেইমার!

    ব্রাজিল ভক্তদের জন্য স্বস্তির খবর। ইনজুরি সামলে উঠেছেন দলটির সেরা তারকা নেইমার। সবকিছু ঠিক থাকলে সোমবারই মাঠে নামবেন এই তারকা ফরোয়ার্ড। দক্ষিণ কোরিয়াকে উড়িয়ে কাতার বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে যেতে চায় ব্রাজিল। আর সেই মিশনে মাঠে নামতে প্রস্তুত নেইমার।

    এবারের বিশ্বকাপে ব্রাজিলের প্রথম ম্যাচেই সার্বিয়ার বিপক্ষে বিপাকে পড়েন তিনি। ডান পায়ের গোড়ালিতে আঘাত পান নেইমার। তারপর সেই যে মাঠের বাইরে এখনো তাকে নিয়ে শঙ্কার অন্ত নেই। গ্রুপ পর্বের দুই ম্যাচেই ছিলেন মাঠের বাইরে। এখন খোদ নেইমারই ব্রাজিলের শেষ ষোলো ম্যাচের আগে জানিয়ে দিলেন, তিনি এখন ভালো আছেন।

    সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক থিয়াগো সিলভাও এনিয়ে মুখ খুললেন। প্রশ্ন ছিল নেইমার খেলার জন্য ফিট? ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারটি উত্তর দিলেন এক শব্দে, ‘হ্যাঁ’।

    সোমবার বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ১টায় মাঠের লড়াই। স্টেডিয়াম ৯৭৪-এ এই লড়াইয়ের আগে ব্রাজিল কোচ তিতেও শোনালেন আশার কথা। কোরিয়া চ্যালেঞ্জের আগে বললেন, ‘রোববার বিকেলে অনুশীলন করেছে ও। যদি সে ভালো থাকে, খেলবে। আমি এমন কোনও তথ্য দিতে চাই না যা সত্যি নয়। যদি সবকিছু ঠিক থাকে, তাহলে খেলবে নেইমার।’

    কিছুটা রহস্য তো থাকল। তবে ব্রাজিল দলটাই এখন ইনজুরির কবলে দিশেহারা। গ্যাব্রিয়েল জেসুস ছিটকেই গেছেন গোটা বিশ্বকাপ থেকে। দানিলোও শঙ্কায়। এখন যদি সেরা তারকা নেইমার সেরে উঠেন, তবেই রক্ষা। ব্রাজিল দলের ডাক্তার রদ্রিগো ল্যাসমার শোনালেন আশার কথা, ‘দেখুন, নেইমারের ব্যাপারে ভাবার সময় আমাদের হাতে আছে। ওর ভালো সম্ভাবনা আছে।’

    নেইমার শেষ অব্দি দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে নকআউটের ম্যাচে সোমবার খেলেন কীনা তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতেই হচ্ছে। কারণ সবকিছু দেখেই ম্যাচের ঘণ্টাখানেক আগে সিদ্ধান্ত জানাবে ব্রাজিল দলের মেডিক্যাল টিম। তবে গুঞ্জন উড়ছে মাঠে নামতে নাকি দেরি সইছে না নেইমারের। কোরিয়াকে উড়িয়ে ব্রাজিলকে শেষ আটে নিয়ে যেতে চান তিনি!

বিচিত্র

  • সবচেয়ে বড় ‘সুশি’ বানিয়ে বিশ্বরেকর্ড দুই টিকটকারের
    সবচেয়ে বড় ‘সুশি’ বানিয়ে বিশ্বরেকর্ড দুই টিকটকারের

    যুক্তরাষ্ট্রের দুই রন্ধনশিল্পী। নিক ডিজিওভানি ও জাপানের লিন ডেভিস মজাদার ও ব্যতিক্রমী রান্নার জন্য ভিডিও স্ট্রিমিং অ্যাপ টিকটকে তুমুল জনপ্রিয় তারা। যেখানে তাদের ফলোয়ার আছে ২২ মিলিয়নেরও বেশি। নিক ডিজিওভানি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং লিন ডেভিস জাপানের নাগরিক। তারা এরই মধ্যে সবচেয়ে বড় চিকেন নাগেট ও বিশ্বের সবচেয়ে বড় ললিপপ কেক বানিয়ে রেকর্ড গড়েছেন।

    এবার এই দুই টিকটকার জাপানের অন্যতম জনপ্রিয় খাবার সুশি বানালেন। সাধারণ সুশির চেয়ে এটি কয়েকগুণ বড়। যেটি প্রায় প্রায় পঁয়তাল্লিশ হাজার নিয়মিত আকারের সুশি রোলের সমান ওজনের ছিল। সুশি রোলটি লম্বায় ছিল ২.১৬ মিটার (৭ ফুট ১ ইঞ্চি)।

    এই সুশি তৈরি করতে অন্তত আটজন শেফের প্রয়োজন হবে তিনঘণ্টা। তবে নিক ও লিন দুজনেই করেছেন আটজনের কাজ। এর আগে এই রেকর্ড ছিল চিলির শেফ ড্যানিয়েল রামিরেজের। তার তৈরি সুশিটি ছিল ২.১০ মিটার (৭ ফুট ৬.৮৮ ইঞ্চি)।

    এই সুশি তৈরিতে লেগেছে ৯০৭.১ কেজি সুশি চাল, ২২৬.৭ কেজি স্যামন মাছ, ২২৬.৭ কেজি শসা, লাখ লাখ তিল, হাজারের বেশি নরি শিট। সঙ্গে আরও যোগ করা হয় তেল ও ভিনেগার। ভাতের স্বাদ বাড়াতেই নিক তেল ও ভিনেগার ব্যবহার করেন।

    সুশি তৈরি খুব সহজ কাজ নয়। জাপানের ঐতিহ্যবাহী এই খাবার তৈরি আছে বিশেষ প্রক্রিয়া। খুব সাবধানে এটি রোল করতে হয়। তা না হলে ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। নোরি শিটের উপর ভাত বিছিয়ে তার উপর সামুদ্রিক মাছ, তাজা শসা, মুলা সহ নানা সবজি ব্যবহার করতে হয়। এরপর পেছিয়ে রোল বানাতে হয়।

    নিক ও লিন গত অক্টোবরে এই সুশি তৈরি করে বিশ্বরেকর্ড করেন। এর আগেও আরও তিনটি বিশ্বরেকর্ড আছে তাদের ঝুলিতে। সর্বশেষ আগস্টে ১ দিনে অর্থাৎ ২৪ ঘণ্টা পায়ে হেঁটে ৬৯টি রেস্তোরাঁর খাবার খেয়ে বিশ্বরেকর্ড করেন তারা। এই পুরো সময়টা ভিডিও করে টিকটকে শেয়ারও করেন তাদের অনুসারীদের সঙ্গে।

চাকরির খবর

  • নিটল মোটরসে চাকরির সুযোগ, নিয়োগ ঢাকার বাইরে
    নিটল মোটরসে চাকরির সুযোগ, নিয়োগ ঢাকার বাইরে

    নিটল মোটরস লিমিটেড সম্প্রতি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি তাদের সোশ্যাল মিডিয়ার জন্য লোকবল নিয়োগ দেবে। আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন।

    পদের নাম : ক্রিয়েটিভ ডিজাইনার/ সোশ্যাল মিডিয়া স্পেশালিস্ট। পদের সংখ্যা : নির্ধারিত না। আবেদন যোগ্যতা : যেকোনো বিষয়ে স্নাতক পাস। তবে ডিপ্লোমা পাস করতে হবে।

    পদ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ২-৬ বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। অ্যাডোবি ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর ও গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজে দক্ষতা থাকতে হবে।

    প্রার্থীর বয়সসীমা ২২-৪০ বছরের মধ্যে হতে হবে। শুধুমাত্র পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। চূড়ান্ত নিয়োগের পর কুমিল্লায় চাকরির আগ্রহ থাকতে হবে।

    আবেদনের শেষ তারিখ : ১১ ডিসেম্বর, ২০২২

    বেতন ও সুযোগ সুবিধা : বেতন আলোচনা সাপেক্ষে। কোম্পানির নীতিমালা অনুসারে মোবাইল বিল, প্রভিডেন্ট ফান্ড, দুপুরের খাবার, উৎসব ভাতা প্রদান করা হবে।

    আবেদন যেভাবে : আগ্রহীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করতে ক্লিক করুন এখানে।