কয়েকদিন বিরতি দিয়ে আবারও শুরু হয়েছে তাপপ্রবাহ। আবহাওয়া অফিস বলছে, এটি আরও বিস্তৃত হতে পারে।

শনিবার (১০ এপ্রিল) রাতে এক পূর্বাভাসে এমনটি জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ অবস্থান করছে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে।

এই অবস্থায় রোববার (১১ এপ্রিল) অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। তবে, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগের দুই-এক জায়গায় বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এছাড়া কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ রাজশাহী বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং এটি বিস্তার লাভ করতে পারে। সারাদেশে দিনের এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে।

এ সময় ঢাকায় দক্ষিণ-পশ্চিম অথবা পশ্চিম দিক থেকে ঢাকায় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ৬ থেকে ১২ কিমি।

এবার চৈত্রের শুরু থেকেই তাপপ্রবাহ শুরু হয়। ইতোমধ্যে দুই দফায় প্রায় ১৫ দিনের মতো তাপপ্রবাহ বয়ে গেছে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল ৩৯ দশমিক ৩ ডিগ্রিতে।

এদিকে তাপপ্রবাহের সঙ্গে সঙ্গে এবার বাতাসের আর্দ্রতার পরিমাণও বেড়েছে। ফলে ভ্যাপসা গরমে জনজীবন অতিষ্ট হওয়ার জোগাড়।

শনিবার ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৫৪ শতাংশ। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে, ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যথাক্রমে ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ২৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ঈশ্বরদীতে ১২ মিলিমিটার।