এবার নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন (এনআইডি) কার্যক্রম সুরক্ষা সেবা বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পাকাপোক্ত সিদ্ধান্ত নিলো সরকার। আর সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে ইসিকে নির্দেশনাও দিয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব শফিউল আজিম ২০ জুন স্বাক্ষরিত এক পত্রে ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকারকে এ নির্দেশনা পাঠিয়েছেন।

‘জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম নির্বাচন কমিশনের পরিবর্তে সুরক্ষা সেবা বিভাগ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্তকরণ’ শিরোনামে পাঠানো ওই নির্দেশনায় বলা হয়েছে- ১৭ মে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পাঠানো পত্রের আলোকে ‘সরকার জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম আইনানুগভাবে নির্বাচন কমিশন থেকে সুরক্ষা সেবা বিভাগে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ’

‘এমতাবস্থায়, নির্দেশনাসমূহ যথাযথভাবে প্রতিপালনের জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো। ’

পত্রের অনুলিপি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবকেও পাঠানো হয়েছে।

গত ১৭ মে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে এনআইডি কার্যক্রম ও লোকবল সুরক্ষা সেবা বিভাগের অধীন হস্তান্তরের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছিল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে। সেই পত্রের আলোকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গত ২৪ মে নির্বাচন কমিশনকে এনআইডি ছেড়ে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেয়।

সেই নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে গত ৭ জুন নির্বাচন কমিশন তার অধীনেই এনআইডি কার্যক্রম রাখার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে চিঠি দেয়।

সব শেষে মন্ত্রিপরিষদ এনআইডি হস্তান্তরের পাকাপোক্ত সিদ্ধান্ত নিলো এবং নির্বাচন কমিশনকে হস্তান্তরের নির্দেশনা দিলো।