জার্মানির কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন গত ১৫ বছর ধরে। এবারের ইউরোর আগেই তিনি ঘোষণা দেন, ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপই শেষ, এরপর আর জার্মানির কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন না।

আগে দেয়া সেই ঘোষণা অনুসারে মঙ্গলবার রাতেই জার্মানির কোচ হিসেবে শেষবার ডাগআউটে দাঁড়ানোর সুযোগ পেলেন জোয়াকিম লো। লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম যে লো’র বিদায় মঞ্চ, তা হয়তো তিনি নিজেও ভাবতে পারেননি। কিন্তু ইংল্যান্ডের কাছে ২-০ গোলে হেরে জার্মানির দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায়ের পরই শেষ হলো লো’র জার্মান অধ্যায়।

আজ থেকে তিনি সাবেক। জার্মানির কোচ হিসেবে আর ডাগআউটে দাঁড়াবেন না তিনি। তার পরিবর্তে জার্মান ফুটবল দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেবেন হান্সি ফ্লিক। গত মৌসুমে বায়ার্ন মিউনিখের কোচ ছিলেন ফ্লিক।

তবে, এভাবে বিদায় ঘটবে, তা হয়তো ভাবতেই পারেননি জোয়াকিম লো। ইংল্যান্ডের কাছে ২-০ গোলে হারের পর খুবই দুঃখবোধ হচ্ছে লো’র। একে তো ইংল্যান্ডের কঠিন ডিফেন্স জার্মানিকে কোনো সুযোগই তৈরি করতে দেয়নি। অন্যদিকে দুটি সুবর্ণ সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি টিমো ওয়ার্নার এবং থমাস মুলার। দুই অর্ধেই তারা গোল করার সুযোগ পেয়েছিলেন।

শেষ ম্যাচের পর জোয়াকিম লো বলেন, ‘এটা অনেক বেশি হতাশার একটি বিষয়। আমরা আরও বেশি আশা করেছিলাম যে, আরও অনেক দুর যাবো। দলের ওপর সেই আস্থাটাও ছিল। কিন্তু যখন এ ধরনের ম্যাচে সহজ সুযোগ নষ্ট করা হয়, তখন আর কিছুই বলার থাকে না।’

দুটি সহজ সুযোগের কথা জানিয়ে লো বলেন, ‘আমরা খুব ভালো দুটি সুযোগ পেয়েছিলাম। ওয়ার্নার এবং মুলার। তারা দু’জন দুটি সহজ সুযোগ মিস করার কারণেই মূলতঃ আমাদেরকে ছিটকে যেতে হলো।’

প্রথমার্ধের শুরুর দিকে টিমো ওয়ার্নার সুযোগ পেয়েছিলেন গোল করার। কিন্তু তিনি ইংলিশ গোলরক্ষক জর্দান পিকফোর্ডের শরীরে মেরে গোল বঞ্চিত হন। এরপর দ্বিতীয়ার্ধে যখন রাহিম স্টার্লিংয়ের গোলে পিছিয়ে যায় জার্মানি, তখন থমাস মুলার সুযোগ পান গোলের। সামনে গোলরক্ষক ছাড়া কেউ ছিল না আর। অথচ তিনি শট মেরে দেন পোস্টের বাইরে।

লো বলেন, ‘যখন এমন কিছু ঘটে, যেমন মুলারের সুযোগ মিস, তখন আপানে শুধু এ পরিস্থিতি গ্রহণই করে নিতে হয়। সাধারণত এমন সব পরিস্থিতিতে সে গোল করতে অভ্যস্ত। কিন্তু আজ (মঙ্গলবার) যখন প্রয়োজন ছিল, তখন পারলো না। দুর্ভাগ্যছাড়া এটা আর কী!’

২০০৬ বিশ্বকাপের পর জার্মানির দায়িত্ব গ্রহণ করেন জোয়াকিম লো। এরপর তার অধীনেই ২০১৪ বিশ্বকাপ জয় করে জার্মানি। কিন্তু চার বছর পর, ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নেয় লো’র জার্মানি। এবার ইউরোর দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নিলো তার দল।