করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবিলায় গঠিত তহবিলের অর্থ অপব্যবহারের দায়ে বহিষ্কার করা হয়েছে মালাউইর শ্রমমন্ত্রী কেন কান্দোডোকে। এছাড়া গ্রেফতার করা হয়েছে প্রেসিডেন্টের কার্যালয়, মন্ত্রিসভাসহ বিভিন্ন সরকারি দফতরের অন্তত এক ডজন কর্মকর্তাকে। রোববার দেশটির প্রেসিডেন্ট লাজারুস চাকভেরা এবং স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

টেলিভিশনে প্রচারিত ভাষণে প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তিনি দেশটির করোনা মোকাবিলা কর্মসূচির ৬ দশমিক ২ বিলিয়ন মালাউইয়ান কোয়াচা (৭ দশমিক ৯৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) তহবিল কীভাবে ব্যয় হচ্ছে তা জানতে একটি নিরীক্ষণের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এতে দেখা গেছে, তহবিলের অনেক অর্থ তছরুপ হয়েছে, অপব্যবহার হয়েছে এবং অলস ফেলে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমি যখন কথা বলছি, তখন এই নিরীক্ষণ প্রতিবেদনে প্রকাশিত অপরাধের জন্য সন্দেহভাজন এক ডজনেরও বেশি লোককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে প্রেসিডেন্ট ও মন্ত্রিপরিষদ কার্যালয়ের কর্মকর্তারাও রয়েছেন।

লাজারুস চাকভেরা বলেন, আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়। প্রমাণের আঙুল যদি আপনার দিকে যায়… আপনি জেলে যাচ্ছেন।

প্রেসিডেন্ট জানান, শ্রমমন্ত্রী কান্দোডো করোনা তহবিল থেকে ৬ লাখ ১৩ হাজার কোয়াচা নিয়ে বিদেশ সফরের জন্য ব্যয় করেছিলেন। অবশ্য তিনি সেই অর্থ ফিরিয়ে দিয়েছেন। তবে তার এই কাজের মানে হচ্ছে, ওই অর্থ যখন যে কাজে ব্যয় করার জন্য থাকার কথা ছিল, তখন সেখানে ছিল না।

বহিষ্কৃত মন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তে তিনি হতবাক, তবে এর বেশি কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি।

গত বছরের জুনে ক্ষমতায় এসেই মালাউই সরকার থেকে দুর্নীতি বিলুপ্ত করার ঘোষণা দিয়েছিলেন চাকভেরা। তিনি জানিয়েছেন, নিরীক্ষণের ভিত্তিতে ধরপাকড় অব্যাহত থাকবে এবং সরকারি কর্মকর্তাদের চুরি করা অর্থ ফেরত দিতে বাধ্য করা হবে।

মালাউই পুলিশ জানিয়েছে, পূর্ব আফ্রিকার দেশটিতে করোনা তহবিল অপব্যবহারের দায়ে এ পর্যন্ত অন্তত ১৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজন ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা ও ১০ জন জেলা কাউন্সিল কর্মকর্তা রয়েছেন।