কানাডায় পুরোনো সব রেকর্ড গুঁড়িয়ে দিয়েছে সাম্প্রতিক তাপদাহ। সেখানে ঘর থেকে বের হওয়াই কঠিন হয়ে উঠেছে। ব্রিটিশ কলম্বিয়া পুলিশ জানিয়েছে, গত সোমবার থেকে ওই অঞ্চলে প্রায় ৭০ জনের মৃত্যু হয়েছে, যাদের বেশিরভাগই প্রবীণ। আর তাদের মৃত্যুর পেছনে ভয়ঙ্কর তাপদাহের প্রভাব রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিবিসির খবর অনুসারে, গত মঙ্গলবার কানাডায় টানা তৃতীয়দিনের মতো দেশটির সর্বকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্র রেকর্ড হয়েছে। এদিন ব্রিটিশ কলম্বিয়ার লাইটন এলাকায় তাপমাত্রা পৌঁছেছিল ৪৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে, যা কানাডীয়রা আগে কখনোই দেখেননি।

এই সপ্তাহের আগে কানাডার তাপমাত্রা আগে কোনোদিন ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরেও ওঠেনি।

পুলিশের তথ্যমতে, ভ্যানকুভারের বার্নাবে ও সারে শহরতলীতে ৬৯ জনের মৃত্যুর পেছনে সাম্প্রতিক তীব্র তাপদাহের প্রভাব রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এদের বেশিরভাগই প্রবীণ অথবা অন্য কোনো স্বাস্থ্যগত সমস্যায় ভুগছিলেন।

প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে ব্রিটিশ কলম্বিয়া এবং আলবার্টা প্রদেশসহ সাসকাচেওয়ান ও উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় এলাকাগুলোতে জরুরি তাপমাত্রা সতর্কতা জারি করেছে কানাডার পরিবেশ এবং জলবায়ু পরিবর্তন দফতর।

এনভায়রনমেন্ট কানাডার জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ ডেভিড ফিলিপস বলেন, আমরা পৃথিবীর শীতলতম এবং তুষারাচ্ছন্ন দেশ। আমরা মাঝেমধ্যেই শীতের ঝটকা বা প্রবল তুষারঝড় দেখতে পাই। তবে এ ধরনের উত্তপ্ত আবহাওয়ার বিষয়ে সাধারণত কথা বলি না।

তার কথায়, আমরা এখন যা দেখছি তার চেয়ে হয়তো দুবাই শীতল হবে।