মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে শুক্রবার হোয়াইট হাউসে সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন জাপানি প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা। ক্ষমতাগ্রহণের পর বাইডেনের সঙ্গে এটাই হবে প্রথম কোনও বিশ্বনেতার সশরীরে সাক্ষাৎ। বৈঠকে স্বাভাবিকভাবেই দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে, তবে সেখানে বিশেষভাবে গুরুত্ব পাবে চীন ইস্যু। জানা গেছে, এ বৈঠক থেকেই বেইজিংয়ের প্রতি কঠোর সতর্কবার্তা দিতে চান প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

মার্কিন প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সিএনএন’কে জানিয়েছেন, শুক্রবারের বৈঠকে দুই নেতা করোনাভাইরাস মহামারি, বাইডেনের উত্তর কোরিয়া নীতি, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ইস্যু, জলবায়ু সংকট, প্রযুক্তি এবং চীনের সঙ্গে সম্পর্ক বিষয়ে আলোচনা করবেন। তবে চীনই তাদের অন্যতম প্রধান আলোচ্য ইস্যু হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপান শান্তি-স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে পারস্পরিক প্রতিশ্রুতি রক্ষা, উত্তেজনা প্রশমিত করা এবং উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড নিরুৎসাহিত করতে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সতর্ক ভূমিকা নেয়ার চেষ্টা করছে।

এ কর্মকর্তা বলেন, আমরা সুস্পষ্ট বার্তা পাঠানোর চেষ্টা করছি যে, চীন তাইওয়ানের আকাশসীমায় অনুপ্রবেশের মতো সাম্প্রতিক যে পদক্ষেপগুলো নিয়েছে, সেগুলো শান্তি ও স্থিতিশীলতার বিরোধী।

তাইওয়ানকে নিজেদের অংশ বলে দাবি করা চীন সাম্প্রতিক সময়ে দ্বীপটির আকাশসীমায় অনুপ্রবেশ নিত্যনৈমত্তিক ঘটনা বানিয়ে ফেলেছে। গত সোমবারই তারা তাইওয়ানের আকাশে অন্তত ২৫টি যুদ্ধবিমান উড়িয়েছে, যা গত কয়েক মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

চীন ইস্যুর পাশাপাশি নিজস্ব স্বার্থ সংশ্লিষ্ট অন্য বিষয়গুলোও দুই নেতার আলোচনায় প্রাধান্য পাবে জানিয়ে ওই মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, আমরা জাপান ও চীনের মধ্যে গভীর অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের কথা জানি এবং প্রধানমন্ত্রী সুগা এ বিষয়ে সাবধানতা অবলম্বন করতে চান। আমরা এটিকে সম্মান করি।