মাঠে নামলেই রেকর্ড গড়েন। না নামলেও রেকর্ড গড়েন। জার্মানির বিপক্ষে হাই-ভোল্টেজ ম্যাচে মাঠে নামার আগে বিরল একটি রেকর্ড সৃষ্টি করলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। শুধু ফুটবলার কিংবা ক্রীড়াবীদ হিসেবেই নয়, পৃথিবীর প্রথম মানুষ হিসেবে অনন্য এক মাইলফলক স্পর্শ করে ফেললেন তিনি।

কী সেই বিরল রেকর্ড? যেটা পৃথিবীর আর কারো নেই? বিশ্বের প্রথম মানুষ হিসেবে সোশ্যাল মিডিয়া সাইট ইনস্টাগ্রামে ৩০০ মিলিয়ন বা ৩০ কোটি ফলোয়ার ছুঁয়ে ফেললেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তার ধারেকাছেও এখন আর কেউ নেই।

দ্বিতীয় স্থানে থাকা হলিউড স্টার ডোয়েন দ্য রক জনসনের ফলোয়ার সংখ্যা ২৪৬ মিলিয়ন। অর্থাৎ ২৪ কোটি ৬০ লাখের আশেপাশে। ইউরো চলাকালীনই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই অনবদ্য রেকর্ড গড়লেন রোনালদো।

রোনালদোর একটা কথাতেই কোকাকোলার বিশাল পরিমাণে (৩৪ হাজার কোটি) টাকার লোকসান হয়েছে কিছুদিন আগেই। তারওপর নারী মহলে রোনালদোর জনপ্রিয়তা অন্যরকম। এর আগে ইনস্টাগ্রামে ২০০ মিলিয়ন ফলোয়ার সংখ্যাও তিনিই প্রথম ছুঁয়েছিলেন।

ফুটবল মাঠে মেসি যতই তার প্রতিদ্বন্দ্বী হোন, ইনস্টাগ্রামে ফলোয়ার সংখ্যার হিসেবে রোনালদোর ধারেকাছেও নেই আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। ইনস্টাগ্রামে মেসির ফলোয়ার সংখ্যা ২১৯ মিলিয়ন তথা ২১ কোটি ৯০ লাখ।

এমনকি ইনস্টাগ্রাম থেকে আয়ের হিসেবেও বিশ্বের সেরা রোনালদোই। ২০১৯ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত রোনালদো ইনস্টাগ্রাম থেকে রোজগার করেছেন ৫০.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা জুভেন্টাসে খেলার পারিশ্রমিকের চেয়েও বেশি।

জুভেন্টাসে খেলে রোনালদোর বার্ষিক আয় ৩৩ মিলিয়ন ইউরো। গতবছর বিশ্বের অ্যাথলেটদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১২০ মিলিয়ন ডলার রোজগার করেছিলেন রোনালদোই।

ইনস্টাগ্রামে রোনালদোর পর রয়েছেন ২. দ্য রক (২৪ কোটি ৬০ লাখ), ৩. আরিয়ানা গ্রান্ডে (২৪ কোটি ৪০ লাখ), ৪. কাইল জেনার (২৪ কোটি ১০ লাখ), ৫. সেলেনা গোমেজ (২৩ কোটি ৮০ লাখ), ৬. কিম কার্দাশিয়ান (২২ কোটি ৯০ লাখ), ৭. লিওনেল মেসি (২১ কোটি ৯০ লাখ), ৮. বিয়োন্সে (১৮ কোটি ৬০ লাখ), ৯. জাস্টিন বিবার (১৭ কোটি ৮০ লাখ), ১০. কেন্ডাল জেনার (১৭ কোটি)।