গত বছর ভারতে করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হওয়ার পর প্রথমবারের মতো দৈনিক সংক্রমণ এক লাখ ছাড়াল। এর ফলে একদিনের সংক্রমণের হারে যুক্তরাষ্ট্রের পরেই এখন স্থান ভারতের। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

রোববার ভারতে ১ লাখ ৩ হাজার ৮৪৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এই আক্রান্তের বড় অংশই শুধু মহারাষ্ট্রেই। প্রদেশটিতে রোববার ৫৭ হাজার ৭৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। এর আগে গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর ভারতে একদিনে সর্বোচ্চ ৯৮ হাজার ৭৯৫ জন করোনায় আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছিল। রোববারের সংক্রমণ সেই রেকর্ডকে ভেঙে দিল।

ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে এ বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে সংক্রমণ আবার বাড়তে শুরু করে। প্রথম ঢেউয়ের দৈনিক সর্বোচ্চ সংক্রমণ ইতোমধ্যেই ছাড়িয়ে গেছে দ্বিতীয় ঢেউয়ে। রোববার ভারতে সক্রিয় রোগীর সংখ্যাতেও রেকর্ড তৈরি হয়েছে যা একদিনে বেড়েছে ৫০ হাজারের বেশি। বর্তমানে দেশটিতে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ৭ লাখ ৪২ হাজার ৮৩০ জন।

চলতি সপ্তাহে (২৯ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল) ভারতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৪৮ হাজার ৬২৫ জন। গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ৪ অক্টোবর পর্যন্ত এক সপ্তাহের সর্বোচ্চ সংক্রমণের পর এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সাপ্তাহিক সংক্রমণের রেকর্ড।

দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। ২৯ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৯৭৪ জনের। এর আগের সপ্তাহের মৃত্যুর চেয়ে এটি ১ হাজার ৯৯ জন বেশি। তবে গত বছর করোনার প্রথম ঢেউয়ের সময় ভারতে যখন দৈনিক সংক্রমণ এখনকার মতোই ছিল, সেই তুলনায় বর্তমান মৃত্যুহার অনেক কম।

রোববার ভারতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৪৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত পাঁচদিন ধরে মৃতের সংখ্যা ৪০০ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এর মধ্যে শনিবার ছিল সবচেয়ে বেশি- ৫১৪ জন।

মহারাষ্ট্রে রোববার আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। শুধু মুম্বাইতেই আক্রান্ত হয়েছেন ১১ হাজার ২০৬ জন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আংশিক লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে মহারাষ্ট্রে। পরবর্তী নির্দেশ জারি না হওয়া পর্যন্ত প্রতি সপ্তাহের শেষে, অর্থাৎ শুক্রবার সন্ধ্যা ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৭টা পর্যন্ত লকডাউন কার্যকর থাকবে।