বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অভিনেতা গোবিন্দ অরুন আহুজা। আশির দশকের শেষ দিকে তার সিনেমায় আবির্ভাব৷ নব্বই দশক মাতিয়েছেন তিনি কৌতুকপূর্ণ সংলাপ আর নাচে৷ উপহার দিয়েছেন ব্লকবাস্টার হিট অনেক সিনেমা।

এখন পর্যন্ত প্রায় ১২০টির বেশি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন গোবিন্দ।

এ অভিনেতা সম্পর্কে জানা গেল মজার এক তথ্য। গোবিন্দ হিন্দি সিনেমায় যখন দারুণ সময় পার করছিলেন সেসময় জেমস ক্যামেরনের ‘অ্যাভাটর’ সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলেন। সেই প্রস্তাব তিনি ফিরিয়েও দিয়েছিলেন।

তবে তিনি যে শুধু ‘অ্যাভাটর’-ই প্রত্যাখান করেছেন তা নয় গাদ্দার, চাঁদনী, তাল এবং দেবদাসের মতো আলোচিত ও হিট হিন্দি সিনেমাগুলো সে সময় ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।

মূলত সময়ের অভাবেই তিনি এ ছবিগুলো ছেড়ে দিয়েছিলেন। ব্যস্ত শিডউলের জটিলতার জন্য ইচ্ছে থাকলেও কাজগুলো করা হয়নি গোবিন্দর।

ভারতের এক টেলিভিশন চ্যানেলে ২০১৯ সালে রজত শর্মার উপস্থাপনায় এক অনুষ্ঠানে এ অভিনেতা জানিয়েছিলেন, ‘আমার কাছে ৪১০ দিনের সময় চাওয়া হয়েছিলো ‘অ্যাভাটর’ সিনেমার জন্য। বলা হয়েছিলো পুরো শরীরে নীল রঙের পেইন্ট ব্যবহার করতে। আমি এই দুটির কোনটিতেই রাজী ছিলাম না।

তাই শেষ পর্যন্ত হলিউডের শীর্ষ আয় করা এ সিনেমায় কাজ করা হয়নি আমার। তবে সিনেমাটি তৈরি করার সময় আমি জেমস ক্যামেরনকে বলেছিলাম এটি সুপারহিট হবে। গল্পটা শুনেই বুঝেছিলাম এটা দারুণ একটা গল্প। দর্শককে হলে টানবে।’

গোবিন্দর এই টিভি শো এর পরেই অবশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ হাসির পাত্রও বনে যান তিনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ট্রল, মিমস এবং ব্যঙ্গ বিদ্রুপের শিকার হন বলিউডের ‘হিরো নাম্বার ওয়ান’।

পরবর্তীতে নেটিজেনদের এসব মন্তব্য নিয়ে আলাপকালে গোবিন্দ জানান, ‘আমি জানি অনেকেই মনে করেন একজন কমেডি অভিনেতা গোবিন্দ কীভাবে জেমস ক্যামেরনের সিনেমার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। আমি তাদের এই চিন্তাকে সম্মান করি। তবে আমি কীভাবে এই প্রস্তাব পাই এসব নিয়েও দেখি মানুষের অনেক সন্দেহ।

আমি তাদেরকে প্রশ্ন করতে চাই, একজন চা দোকানদার কীভাবে ধনী হতে পারে? কিংবা একজন টেলিভিশন অভিনেতা কীভাবে সিনেমায় অভিনয় করতে পারে? এইসবও তো অসম্ভব। আমাকে যদি আপনি বিশ্বাস না করেন তাহলে আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু আপনি কখনোই আমার যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারেন না।’