রাশিয়ার ১৮ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছে চেক প্রজাতন্ত্র। ২০১৪ সালে চেক প্রজাতন্ত্রের একটি গোলাবারুদের ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনায় রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জড়িত ছিল বলে অভিযোগ এনে রুশ কর্মকর্তাদের বহিষ্কার করা হলো। চেক প্রজাতন্ত্রের পক্ষ থেকে রুশ কূটনীতিকদের বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। খবর বিবিসি, রয়টার্স।

কেন্দ্রীয় ইউরোপের দেশ চেক প্রজাতন্ত্র ন্যাটো এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য। দেশটির সাম্প্রতি এই পদক্ষেপের কারণে মস্কোয় অবস্থিত চেক প্রজাতন্ত্রের দূতাবাস বন্ধ করার বিষয়ে বিবেচনা করতে পারে রাশিয়া।

চেক প্রধানমন্ত্রী আন্দ্রেজ বাবিস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ভ্রাবেটিস অঞ্চলে একটি গোলাবারুদ ডিপো বিস্ফোরণে রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা জিআরইউয়ের কর্মকর্তারা জড়িত ছিলেন বলে সুস্পষ্টভাবে সন্দেহ রয়েছে।

প্রাগের ৩৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ভ্রাবেটিস ডিপোতে ২০১৪ সালের অক্টোবরে বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে একটি বেসরকারি সংস্থার দু’জন কর্মচারী নিহত হন। ওই বেসরকারি কোম্পানি রাষ্ট্রীয় একটি সামরিক সংস্থার কাছ থেকে সাইটটি ভাড়া নিয়েছিল।

এদিকে, প্রাগে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, ওয়াশিংটর চেক প্রজাতন্ত্রের এমন পদক্ষেপকে সমর্থন জানায়। চেক প্রজাতন্ত্রের মাটিতে রাশিয়া যে ধরনের বিপজ্জনক কর্মকাণ্ড করেছে তার বিরুদ্ধে দেশটির গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের প্রশংসা জানানো হয়েছে।

চেক প্রজাতন্ত্রের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী জান হামাচেক বলেন, রাশিয়ার ১৮ দূতাবাস কর্মীকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে দেশ ছাড়ার আদেশ দেয়া হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বের দুই ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাশিয়ার ১০ কূটনীতিককে বহিষ্কার করেছিল বাইডেন প্রশাসন। জবাব দিতে দেরি করেনি মস্কো। তারাও একই সংখ্যক মার্কিন কূটনীতিককে রাশিয়া ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবর অনুসারে, ওয়াশিংটনের ‘রুশ-বিরোধী পদক্ষেপ’-এর জবাবে শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের ১০ কূটনীতিক বহিষ্কার এবং আরও আটজন সাবেক ও বর্তমান মার্কিন কর্মকর্তার রাশিয়ায় প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে পুতিন প্রশাসন। যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়ার মধ্যকার এই উত্তেজনার মধ্যেই চেক প্রজাতন্ত্র রুশ কূটনীতিকদের বহিষ্কার করল।