কয়েকদিন ধরে দেশজুড়ে যে ভারি বৃষ্টি হচ্ছে তা আগামী রোববার (৪ জুলাই) থেকে কমতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। আষাঢ়ের মাঝামাঝি এসে সারাদেশেই ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টি হচ্ছে। ভারি বৃষ্টির কারণে এক দিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা প্রায় ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে গেছে।

করোনাভাইরাসের উদ্বেগজনক বিস্তারের ফলে কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে দেশবাসী। এরমধ্যে শুক্রবারের সকালটি ছিল বৃষ্টিস্নাত। সকাল গড়িয়ে বেলা দুপুরের দিকে গেলেও বৃষ্টি থামার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। মানুষকে ঘরে আটকে রাখতে সরকারের সঙ্গে প্রকৃতিরও যেন জোরদার আয়োজন।

আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, প্রচুর জলীয়বাষ্প নিয়ে আসা দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

শুক্রবার (২ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানিয়ে আবহাওয়াবিদ এ কে এম নাজমুল হক বলেন, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টি হতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আগামী তিন দিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানিয়ে তিনি বলেন, এ সময়ের দিকে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কমতে পারে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত সারাদেশেই বৃষ্টি হয়েছে। এ সময়ের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে কক্সবাজারে, সেখানে ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া বিভাগ। এ সময় ঢাকায় ৩৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল মংলায় ৩১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে, ৩৫ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিনের ব্যবধানে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা কমেছে ৩ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।