তৃতীয়বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। আগামী বছরের জুলাইয়ে বাগদত্তা ক্যারি সিমন্ডসকে বিয়ে করবেন তিনি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য সানের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।

জানা যায়, ২০১৯ সালের শেষের দিকে বাগদান সারলেও অনেকের মতো বরিস-ক্যারি যুগলও করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বিয়ের অনুষ্ঠান পিছিয়ে দেন। তবে সেই অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে।

৫৬ বছর বয়সী বরিস জনসনের এটি তৃতীয় বিয়ে হলেও তার চেয়ে ২৩ বছরের ছোট ক্যারি সিমন্ডসের জন্য প্রথম বিয়ে হতে চলেছে। তারা ইতোমধ্যে আত্মীয়-স্বজনদের কাছে বিয়ের নিমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েয়েছেন, যেখানে বিয়ের সময় হিসেবে ২০২২ সালের জুলাই মাসের কথা উল্লেখ রয়েছে।

বিয়ের অনুষ্ঠান কোথায় হবে তা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাকিংহ্যামশায়ারের বাসভবন চেকার্সে এর আয়োজন হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সম্ভাব্য ভেন্যু হিসেবে কেন্টের পোর্ট লিম্পেন সাফারি পার্কের নামও উঠে আসছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, এ যুগল ইতালি গিয়ে গাঁটছড়া বাধতে পারেন। কারণ সেখানে ক্যারির স্বজনেরা রয়েছেন।

২০১৯ সালে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হন বরিস জনসন। এরপর প্রেমিকা ক্যারি সিমন্ডসকে নিয়ে ডাউনিং স্ট্রিটে ওঠেন তিনি। সেখানে বসবাসকারী প্রথম অবিবাহিত যুগল তারা।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাগদান ও ক্যারি সন্তানসম্ভবা থাকার খবর ঘোষণা করেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। ওই মাসেই দ্বিতীয় স্ত্রী মারিয়ানা হুইলারের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বিয়ে বিচ্ছেদ করেন তিনি। মারিয়ানা-বরিসের সংসারে দুই কন্যা ও দুই পুত্র রয়েছে।

এর আগে অ্যালেগরা মস্টাইন-ওয়েন নামে এক নারীকে বিয়ে করেছিলেন বরিস জনসন।

২০২০ সালের এপ্রিলে পুত্র সন্তানের জন্ম দেন ক্যারি সিমন্ডস। করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ধাকার সময় বরিস জনসনকে যে দুই চিকিৎসক দেখভাল করতেন, তাদের সম্মানে ছেলের নাম উইলফ্রেড লরি নিকোলাস জনসন রেখেছেন এ দম্পতি।