গত ২৩ জুন (বুধবার) শেষ হয়েছে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসর। ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনে হওয়া ফাইনালে ভারতকে ৮ উইকেটে হারিয়ে টেস্টের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে গেছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দল। বিশেষজ্ঞ-বিশ্লেষকদের মতে যোগ্য দলই হয়েছে চ্যাম্পিয়ন।

আর এবার টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ছাপিয়ে বাজে আচরণের চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে হাজির হয়েছে জনপ্রিয় ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইট ক্রিকইনফো। যেখানে তারা বিশ্লেষণ করেছে বিগত দিনগুলোতে খেলোয়াড়ের বাজে আচরণের সব ঘটনা এবং শেষমেশ বাজে আচরণের রাজা হিসেবে আখ্যায়িত সাকিব আল হাসানকে!

এর পেছনে রয়েছে সবশেষ ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে ম্যাচের ঘটনা। গত ১১ জুনের ম্যাচটিতে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মনঃপুত না হওয়ায় প্রথমে স্ট্যাম্পে লাথি মারেন সাকিব। পরে বৃষ্টির কারণে খেলা বন্ধের ঘোষণা দেয়া হলে তিনটি স্ট্যাম্প তুলে মাটিতে সজোরে আছাড় মারেন তিনি।

এ ঘটনায় সাকিবকে ৩ ম্যাচ নিষিদ্ধ ও ৫ লাখ টাকা জরিমানার শাস্তি দেয়া হয়। এ শাস্তি ভোগ করে প্রিমিয়ার লিগের প্রথম পর্বের শেষ ম্যাচটিও খেলেছিলেন সাকিব। ক্রিকেট মাঠে খেলোয়াড়দের মেজাজ হারানোর এমন ঘটনা প্রায়ই দেখা যায় বিধায়, এটিকে তেমন বড় করেনি প্রিমিয়ার লিগের আয়োজকরা।

তবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শেষে এর সঙ্গে মিল রেখে নিজেদের মাসিক আয়োজন ‘দ্য ব্রিফিং’য়ে বাজে আচরণের চ্যাম্পিয়নশিপের একটা ধারণা তুলে আনল ক্রিকইনফো। সেখানেই বাকি সবাইকে ছাপিয়ে ‘ব্যাড বিহেভিয়ার কিং’ তথা বাজে আচরণের রাজা হিসেবে সাকিবের নাম উল্লেখ করেছে তারা।

একই প্রতিবেদন বাজে আচরণ করা ভাই হিসেবে শ্রীলঙ্কার তিন ক্রিকেটার কুশল মেন্ডিস, নিরোশান ডিকভেলা ও নিরোশান গুনাথিলাকার নাম উল্লেখ করেছে তারা। কেননা জাতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বের মাঝে জৈব সুরক্ষা বলয় ভঙ্গের মতো গর্হিত কাজ করেছেন এ তিনজন।

সাকিবকে বাজে ব্যবহারের রাজা উল্লেখ করে ক্রিকইনফো লিখেছে, ‘শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের জৈব সুরক্ষা বলয় ভঙ্গের কাজটি বাজে আচরণের পাল্লায় খুব ছোট হয়ে দেখাবে, যখন তাদেরকেও ছাপিয়ে যাবে কেউ। ঠিক তেমনই কাজ করেছেন সাকিব আল হাসান। তিনি জানতেন সরাসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে এবং মিডিয়াও সেখানে নজর রেখেছে।’

‘এরই মাঝে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে প্রথমে আউটের আবেদনে সিদ্ধান্ত পছন্দ না হওয়ায় স্ট্যাম্পে লাথি মারা এবং পরে বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ করার ঘোষণা দিলে স্ট্যাম্প তুলে মাটিতে আছাড়া মেরেছেন।’

‘অথচ ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন রাখার দায়ে পাওয়া নিষেধাজ্ঞার এখনও দুই বছর হয়নি সাকিবের। এর সঙ্গে রয়েছে তার আগের নানান কীর্তি। যেমন খেলা ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি (নিদাহাস ট্রফি), আম্পায়ারের ওপর রাগ দেখানো (বিপিএল), একজন দর্শককে শারীরিক প্রহারসহ আরও অনেক কিছু। যেগুলো সত্যিই দেখার বিষয়।’

‘যদি সত্যিই বিশ্ব বাজে আচরণের কোনো চ্যাম্পিয়নশিপ হয়, তাহলে নিশ্চয়ই সেটা উঠবে সাকিবের হাতে। তবে তার হাতে ট্রফিটি তুলে দেয়ার সাথে সাথে আপনাকে ভোঁ দৌড় দিতে হবে শুধু। কারণ অবশ্যই তিনি এটিকেও ছুঁড়ে মারবেন আপনার দিকে।’

উল্লেখ্য, ক্রিকইনফোর মাসিক আয়োজন দ্য ব্রিফিং। যেখানে মূলত বিগত দিনগুলোতে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোকে কৌতুকের ছলে তুলে আনে তারা। এর আগে মার্চ মাসের প্রতিবেদনে সাকিবের টেস্ট বাদ দিয়ে আইপিএলকে বেছে নেয়ার ঘটনাকেও দ্য ব্রিফিংয়ে সমালোচনা করা হয়েছিল।